মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

আপনাদের নানা প্রশ্ন

উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাছে নানা প্রশ্ন পাঠান 

ফরিদপুর, পাবনা। 

সম্ভাব্য প্রশ্ন ও প্রদেয় উত্তর সমূহ

উপজেলা প্রশাসনের কাজ কি?

উপজেলা প্রশাসনের অন্যতম প্রধানকাজঃ

১। উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে সকল সরকারী দপ্তরকে উপজেলা পরিষেদের মাধ্যমে সমন্বয়ে সহযোগীতা প্রদান করা।

২। উপজেলার আইন-শৃঙ্খলা সবসময় সমু্ন্নত রাখতে সচেষ্ট হওয়া।

৩। উপজেলা পরিষদকে সাচিবিক সহায়তা প্রদান করা।

৪। জাতীয় দিবস সমূহের আয়োজন করা।

৫। ভূমি ব্যবস্থাপনা বিষয়ে তদারকি করা।

৬। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা।      

৭। ইউনিয়ন পরিষদ সমূহের কার্যক্রম তদারকী করা এবং পরামর্শ প্রদান।

৮। সক্ষমতা অর্জনের জন্য প্রশিক্ষণের আয়োজন করা।

৯। সরকার কতৃক নির্দেশিত অন্যসকল সরকারী কাজ।

 

উপজেলা নির্বাহী আফিসারের কার্যলয়ে জন্ম নিবন্ধন করা যায় কি?

না। জন্ম নিবন্ধনের জন্য সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদে বা পৌরসভায় যেতে হবে।

 

নামজারী/খারিজ করতে কি করতে হয়?

নামজারীর জন্য নির্ধারিত আবেদন পত্রে ৫ টাকার ননজুডিশিয়াল কোর্র্ট স্ট্যাম সহ  আবেদনপত্রের সাথে দলিলের ফটোকপি, মূল রেকর্ডের সেত্যায়িত কপি, ওয়ারিশান সনদ (প্রযোয্য ক্ষেত্রে) সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর কার্যালয়ে/উপজেলা ভূমি অফিসে জমা প্রদান করে রশিদ বুঝে নিতে হয়। পরে যে তারিখে হাজির হতে বলবেন সেই তারিখে শুনানিতে হাজির হতে হয়। কাগজ পত্র সঠিক থাকলে পরবর্তী তারিখে বা ঐ তারিখেই ডিসিআর বাবদ ২৪৫/= টাকা জমা প্রদান করে ।

 

 

ভূমি বিষয়ক প্রশ্ন

 

খতিয়ান কী ?

মৌজা ভিত্তিক এক বা একাদিক ভূমি মালিকের ভূ-সম্পত্তির বিবরন সহ যে ভূমি রেকর্ড জরিপকালে প্রস্তুত করা হয় তাকে খতিয়ান বলে।


সি,এস রেকর্ড কী ?
সি,এস হল ক্যাডাস্টাল সার্ভে। আমাদের দেশে জেলা ভিত্তিক প্রথম যে নক্সা ও ভূমি রেকর্ড প্রস্তুত করা হয় তাকে সি,এস রেকর্ড বলা হয়।


এস,এ খতিয়ান কী ?
সরকার কর্তৃক ১৯৫০ সনে জমিদারি অধিগ্রহন ও প্রজাস্বত্ব আইন জারি করার পর যে খতিয়ান প্রস্তুত করা হয় তাকে এস,এ খতিয়ান বলা হয়।  


নামজারী কী ?
উত্তরাধিকার বা ক্রয় সূত্রে বা অন্য কোন প্রক্রিয়ায় কোন জমিতে কেউ নতুন মালিক হলে  তার নাম খতিয়ানভূক্ত করার প্রক্রিয়াকে নামজারী বলে।


জমা খারিজ কী ?
জমা খারিজ অর্থ যৌথ জমা বিভক্ত করে আলাদা করে নতুন খতিয়ান সৃষ্টি করা। প্রজার কোন জোতের কোন জমি হস্তান্তর বা বন্টনের কারনে মূল খতিয়ান থেকে কিছু জমি নিয়ে নুতন জোত বা খতিয়ান খোলাকে জমা খারিজ বলা হয়।


পর্চা কী ?
ভূমি জরিপকালে প্রস্তুতকৃত খসরা খতিয়ান যে অনুলিপি তসদিক বা সত্যায়নের পূর্বে ভূমি মালিকের নিকট বিলি করা হয় তাকে মাঠ পর্চা বলে। রাজস্ব অফিসার কর্তৃক পর্চা সত্যায়িত বা তসদিক হওয়ার পর আপত্তি এবং আপিল শোনানির শেষে খতিয়ান চুরান্তভাবে প্রকাশিত হওয়ার পর ইহার অনুলিপিকে পর্চা বলা হয়।


তফসিল কী ?
তফসিল অর্থ জমির পরিচিতিমূলক বিস্তারিত বিবরন। কোন জমির পরিচয় প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট মৌজার নাম, খতিয়ান নং, দাগ নং, জমির চৌহদ্দি, জমির পরিমান ইত্যাদি তথ্য সমৃদ্ধ বিবরনকে তফসিল বলে।


মৌজা কী ?
ক্যাডষ্টাল জরিপের সময় প্রতি থানা এলাকাকে অনোকগুলো এককে বিভক্ত করে প্রত্যেকটি একক এর ক্রমিক নং দিয়ে চিহ্নিত করে জরিপ করা হয়েছে। থানা এলাকার এরুপ প্রত্যেকটি একককে মৌজা বলে। এক বা একাদিক গ্রাম বা পাড়া নিয়ে একটি মৌজা ঘঠিত হয়।


খাজনা কী ?
ভূমি ব্যবহারের জন্য প্রজার নিকট থেকে সরকার বার্ষিক ভিত্তিতে যে ভুমি কর আদায় করে তাকে ভুমির খাজনা বলা হয়।


ওয়াকফ কী ?
ইসলামি বিধান মোতাবেক মুসলিম ভূমি মালিক কর্তৃক ধর্মীয় ও সমাজ কল্যানমুলক প্রতিষ্ঠানের ব্যায় ভার বহন করার উদ্দেশ্যে কোন সম্পত্তি দান করাকে ওয়াকফ বলে।


মোতওয়াল্লী কী ?
ওয়াকফ সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা ও তত্ত্বাবধান যিনি করেন তাকে মোতওয়াল্লী বলে।মোতওয়াল্লী ওয়াকফ প্রশাষকের অনুমতি ব্যতিত ওয়াকফ সম্পত্তি হস্তান্তর করতে পারেন না।


ওয়রিশ কী ?
ওয়ারিশ অর্থ ধর্মীয় বিধানের আওতায় উত্তরাধিকারী। কোন ব্যক্তি উইল না করে মৃত্যু বরন করলে আইনের বিধান অনুযায়ী তার স্ত্রী, সন্তান বা নিকট আত্নীয়দের মধ্যে যারা তার রেখে যাওয়া সম্পত্তিতে মালিক হন এমন ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গকে ওয়ারিশ বলা হয়।


ফারায়েজ কী ?
ইসলামি বিধান মোতাবেক মৃত ব্যক্তির সম্পত্তি বন্টন করার নিয়ম ও প্রক্রিয়াকে ফারায়েজ বলে।


খাস জমি কী ?
ভূমি মন্ত্রনালয়ের আওতাধিন যে জমি সরকারের পক্ষে কালেক্টর তত্ত্বাবধান করেন এমন জমিকে খাস জমি বলে।


কবুলিয়ত কী ?
সরকার কর্তৃক কৃষককে জমি বন্দোবস্ত দেওয়ার প্রস্তাব প্রজা কর্তৃক গ্রহন করে খাজনা প্রদানের যে অংঙ্গিকার পত্র দেওয়া হয় তাকে কবুলিয়ত বলে।


দাগ নং কী ?
মৌজায় প্রত্যেক ভূমি মালিকের জমি আলাদাভাবে বা জমির শ্রেনী ভিত্তিক প্রত্যেকটি ভূমি খন্ডকে আলাদাভাবে চিহ্নিত করার লক্ষ্যে সিমানা খুটি বা আইল দিয়ে স্বরজমিনে আলাদাভাবে প্রদর্শন করা হয়। মৌজা নক্সায় প্রত্যেকটি ভূমি খন্ডকে ক্রমিক নম্বর দিয়ে জমি চিহ্নিত বা সনাক্ত করার লক্ষ্যে প্রদত্ত্ব নাম্বারকে দাগ নাম্বার বলে।


ছুট দাগ কী ?
ভূমি জরিপের প্রাথমিক পর্যায়ে নক্সা প্রস্তুত বা সংশোধনের সময় নক্সার প্রত্যেকটি ভূ-খন্ডের ক্রমিক নাম্বার দেওয়ার সময় যে ক্রমিক নাম্বার ভূলক্রমে বাদ পরে যায় অথবা প্রাথমিক পর্যায়ের পরে দুটি ভূমি খন্ড একত্রিত হওয়ার কারনে যে ক্রমিক নাম্বার বাদ দিতে হয় তাকে ছুট দাগ বলা হয়।


চান্দিনা ভিটি কী ?
হাট বাজারের স্থায়ী বা অস্থায়ী দোকান অংশের অকৃষি প্রজা স্বত্ত্য এলাকাকে চান্দিনা ভিটি বলা হয়।


অগ্রক্রয়াধিকার কী ?
অগ্রক্রয়াধিকার অর্থ সম্পত্ত্বি ক্রয় করার ক্ষেত্রে আইনানুগভাবে অন্যান্য ক্রেতার তুলনায় অগ্রাধিকার প্রাপ্যতার বিধান। কোন কৃষি জমির মালিক বা অংশিদার কোন আগন্তুকের নিকট তার অংশ বা জমি বিক্রির মাধ্যমে হস্তান্তর করলে অন্য অংশিদার কর্তৃক দলিলে বর্নিত মূল্য সহ অতিরিক্ত ১০% অর্থ বিক্রি বা অবহিত হওয়ার ৪ মাসের মধ্যে আদালতে জমা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে জমি ক্রয় করার আইনানুগ অধিকারকে অগ্রক্রয়াধিকার বলা হয়।


আমিন কী ?
ভূমি জরিপের মধ্যমে নক্সা ও খতিয়ান প্রস্তুত ও ভূমি জরিপ কাজে নিজুক্ত কর্মচারীকে আমিন বলা হত।


সিকস্তি কী ?
নদী ভাংঙ্গনে জমি পানিতে বিলিন হয়ে যাওয়াকে সিকস্তি বলা হয়। সিকস্তি জমি ৩০ বছরের মধ্যে স্বস্থানে পয়স্তি হলে সিকস্তি হওয়ার প্রাককালে যিনি ভূমি মালিক ছিলেন, তিনি বা তাহার উত্তরাধিকারগন উক্ত জমির মালিকানা শর্ত সাপেক্ষ্যে প্রাপ্য হবেন।


পয়স্তি কী ?
নদী গর্ভ থেকে পলি মাটির চর পড়ে জমির সৃষ্টি হওয়াকে পয়স্তি বলা হয়।


নাল জমি কী ?
সমতল ২ বা ৩ ফসলি আবাদি জমিকে নাল জমি বলা হয়।


দেবোত্তর সম্পত্তি কী ?
হিন্দুদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদির আয়োজন, ব্যাবস্থাপনা ও সু-সম্পন্ন করার ব্যয় ভার নির্বাহের লক্ষ্যে উৎসর্গকৃত ভূমিকে দেবোত্তর সম্পত্তি সম্পত্তি বলা হয়।  


দাখিলা কী ?
ভূমি মালিকের নিকট হতে ভূমি কর আদায় করে যে নির্দিষ্ট ফরমে (ফরম নং-১০৭৭) ভূমিকর আদায়ের প্রমানপত্র বা রশিদ দেওয়া হয় তাকে দাখিলা বলে।


ডি,সি,আর কী ?
ভূমি কর ব্যতিত অন্যান্য সরকারি পাওনা আদায় করার পর যে নির্ধারিত ফরমে (ফরম নং-২২২) রশিদ দেওয়া হয় তাকে ডি,সি,আর বলে।


দলিল কী ?
যে কোন লিখিত বিবরনি যা ভবিষ্যতে আদালতে স্বাক্ষ্য হিসেবে গ্রহনযোগ্য তাকে দলিল বলা হয়। তবে রেজিষ্ট্রেশন আইনের বিধান মোতাবেক জমি ক্রেতা এবং বিক্রেতা সম্পত্তি হস্তান্তর করার জন্য যে চুক্তিপত্র সম্পাদন ও রেজিষ্ট্রি করেন তাকে সাধারনভাবে দলিল বলে।


কিস্তোয়ার কী ?
ভূমি জরিপকালে চতুর্ভূজ ও মোরব্বা প্রস্তুত করারপর  সিকমি লাইনে চেইন চালিয়ে সঠিকভাবে খন্ড খন্ড ভূমির বাস্তব ভৌগলিক চিত্র অঙ্কনের মাধ্যমে নক্সা প্রস্তুতের পদ্ধতিকে কিস্তোয়ার বলে।


খানাপুরি কী ?
জরিপের সময় মৌজা নক্সা প্রস্তুত করার পর খতিয়ান প্রস্তুতকালে খতিয়ান ফর্মের প্রত্যেকটি কলাম জরিপ কর্মচারী কর্তৃক পূরণ করার প্রক্রিয়াকে খানাপুরি বলে।

 

পাসপোর্ট সংক্রান্ত :

 

ক্রমিক নং

প্রশ্ন

উত্তর

আন্তর্জাতিক পাসপোর্ট

০১.

পাসপোর্টের আবেদন ফরম কোথায় পাওয়া যায় ?

পাসপোর্ট অফিস এবং পোষ্ট অফিস (বিনামূল্যে), যে কোন মূল কপির ফটোকপি গ্রহণযোগ্য।

 

০২.

পাসপোর্ট পাওয়ার পদ্ধতি ?

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন করার পর পুলিশ ভেরিফিকেশনে সন্তোষজনক প্রতিবেদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে পাসপোর্ট প্রদান করা হয়।

 

০৩.

অতিজরুরী পাসপোর্ট কতদিনে সরবরাহ করা হয় এবং ফি কত ?

আবেদন করার ৭২ ঘন্টার মধ্যে সরবরাহ করা হয়।

৪৮ পৃষ্ঠার বই এর জন্য - ৫০০০/- (পাঁচ হাজার) টাকা।

৬৪ পৃষ্ঠার বই এর জন্য - ৬০০০/- (ছয় হাজার) টাকা।

 

০৪.

জরুরী পাসপোর্ট কতদিনে সরবরাহ করা হয় এবং ফি কত ?

পুলিশ প্রতিবেদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে ১১ দিন পরে অন্যথায় ২১ দিন পরে সরবরাহ করা হয়।

৪৮ পৃষ্ঠার বই এর জন্য - ৩০০০/- (তিন হাজার) টাকা।

৬৪ পৃষ্ঠার বই এর জন্য - ৩৫০০/- (তিন হাজার পাঁচ শত) টাকা।

 

০৫.

সাধারণপাসপোর্ট কতদিনে সরবরাহ করা হয় এবং ফি কত ?

পুলিশ প্রতিবেদন প্রাপ্তি সাপেক্ষে ২১ দিন পরে অন্যথায় ১ মাস পরে সরবরাহ করা হয়।

৪৮ পৃষ্ঠার বই এর জন্য - ২০০০/- (দুই হাজার) টাকা।

৬৪ পৃষ্ঠার বই এর জন্য - ২৫০০/- (দুই হাজার পাঁচ শত) টাকা।

 

০৬.

পাসপোর্ট নবায়ন করতে কত দিন লাগে এবং ফি কত?

অতিজরুরী- ৭২ ঘন্টার মধ্যে- ফি-২৫০০/- টাকা।

সাধারণ- ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে- ফি-১৫০০/- টাকা।

 

০৭.

সংশোধন, সংযোজন ও বিয়োজন করতে কত দিন লাগে এবং ফি কত ?

অতিজরুরী- ৭২ ঘন্টার মধ্যে- ফি-৫০০/- টাকা।

সাধারণ- ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে- ফি-৩০০/- টাকা।

 

বিশেষ পাসপোর্ট

০৮.

পাসপোর্ট নবায়ন করতে কত দিন লাগে এবং ফি কত?

অতিজরুরী- ৭২ ঘন্টার মধ্যে- ফি-১৫০০/- টাকা।

সাধারণ- ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে- ফি-১০০০/- টাকা।

 

০৯.

সংশোধন, সংযোজন ও বিয়োজন করতে কত দিন লাগে এবং ফি কত ?

অতিজরুরী- ৭২ ঘন্টার মধ্যে- ফি-৩০০/- টাকা।

সাধারণ- ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে- ফি-২০০/- টাকা।

 

১০.

কখন আবেদনপত্র গ্রহণ করা হয় ?

সকাল-৯.০০ টা হতে দুপুর- ২.০০ টা পর্যন্ত।

 

১১.

কখন পাসপোর্ট বিতরণ করা হয় ?

বিকাল- ৪.০০ টা হতে ৫.০০ টা পর্যন্ত।

 

১২.

কি কি কাগজপত্র আবশ্যক ?

নতুন আবেদনঃ- নাগরিক সনদ, ভোটার আইডি কার্ড। সরকারী চাকুরীজীবীর ক্ষেত্রে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র।

নাম সংশোধনের ক্ষেত্রেঃ- নাম সংশোধনের ক্ষেত্রে এস এস সি বা সমমানের সনদ/ প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতের হলফনামা অথবা পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি আবশ্যক।

সন্তানের নাম সংযোজনের ক্ষেত্রে ঃ- সন্তানের জন্ম সনদ।

 

 

ড্রাইভিং লাইসেন্স সংক্রান্ত জিজ্ঞাসাঃ( বি.আর.টি.এ)

 

 

্রমিক নং

প্রশ্ন

উত্তর

০১.

ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন ফরম কোথায় পাওয়া যায়?

বি.আর.টি.এ শাখা থেকে অথবা যে কোন ফরম স্টেশনারীর দোকান থেকে মূল ফরমের ফটোকপি গ্রহণযোগ্য।

 

০২.

লাইসেন্স ফি কত ?

লার্নার লাইসেন্স ফি-২০০/- টাকা।

 

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি-১২৫০/- টাকা।

 

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি-২০০০/- টাকা।

 

০৩.

ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষা কখন অনুষ্ঠিত হয় ?

সাধারনত প্রতি মাসে একবার অনুষ্ঠিত হয়।

 

০৪.

কি কি কাগজপত্র আবশ্যক ?

নির্ধারিত ফরমে আবেদন, মেডিকেল ফিটনেস সার্টিফিকেট, বয়স প্রমাণের জন্যজাতীয় পরিচয়পত্র/ এসএসসি সাটিফিকেট/ জন্মসনদ, নাগরিক সনদপত্র, রক্তের গ্রুপপরীক্ষার কাগজ, ছবি পাসপোর্ট সাইজ ২ টি এবং স্ট্যাম্প সাইজ ৪ টি।

 

০৫.

লাইসেন্স নবায়ন ফি কত ?

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি- ১০০০/- টাকা।

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি- ১৭৫০/- টাকা।

 

অন্যান্য প্রশ্ন সমূহ :

 

Can I get the Government forms from this site?

Yes, you can get some of the Government forms from this site by clicking on the links under the "Government Forms" on the right column of the homepage. You can also see the button "More Form".

How can I know today's currency rate?

If you want to know the updated foreign currency rate, just go to the Currency Rate section of the right hand column of the homepage.

How do I look up a postal code?

Click on "Post Code Lookup" under "Postal Service" on the right hand column of the homepage.  

What if I have specific questions about the Bangladesh Government Web portal?

For questions or comments on this site, please click on Feedback.

What if I want to know about Government circulars or gazettes?

If you want to know the Government circular or any gazette please go to the link "Circular / Gazette"from the main Menu Bar.  

What is this Web Portal for?

Bangladesh Government Web Portal aims to provide all updated information about Government services through a one-stop online portal. This is one of the e-Governance initiatives to bring all Government websites and its information under a single roof. As such, the Prime Minister’s Office aims to provide all information about GOB's services to its citizens through this Web Portal.

What types of information the website will provide?

The website will provide information on the most popular citizen services by GoB, the basic information of the structure of Bangladesh Government  and other important information and links